YOU ARE HERE: Khola-Janala : Life Style

Home [X]


বিশ্বজুড়ে বলিউড

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে বলিউড। ‘স্লামডগ মিলিওনেয়ার’ যেন সেই কথারই সত্যতা প্রমাণ করলো। হলিউডের পর সবচেয়ে বড় বাজার এখন হিন্দী ছবির। আন্তর্জাতিক আঙিনায় বলিউডের উর্ধ্বমুখী অবস্থান নিয়ে এই প্রতিবেদন।

চল্লিশের দশক থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত এমন ছবির সংখ্যা হবে কম করে হলেও ৮০টি যেসব হলিউডি ছবির আংশিক, অধিকাংশ কিংবা সম্পূর্ণ দৃশ্যায়ন হয়েছে ভারতে। ‘দ্য ড্রাম’ (১৯৩৮), ‘অক্টোপুসি’ (১৯৮৩)’, ‘সিটি অব জয়’ (১৯৯২), ‘জঙ্গল বুক’ (১৯৯৪), ‘ইন দ্য শ্যাডো অব দ্য কোবরা’ (২০০৪), ‘দ্য বর্ন সুপ্রিমেসি’ (২০০৪) সহ আরো অনেক ছবির নাম হড়বড় করে বলে দেয়া যাবে যেসব ছবির পটভূমি ছিল ভারত।

গত কয়েক বছরে ভারতীয় প্রেক্ষাপটে ছবি নির্মাণের হার আগের চেয়ে অনেক বেড়ে গেছে। ফি বছর প্রায় ১৫টি হলিউডি ছবির শুটিং হয় ভারতে। একটা সময় ভারতীয় দর্শকদের সান্তনা ছিল এটুকুই তাদের সেরা অভিনেতাদের অনেকেই হলিউডের নামজাদা প্রডাকশনের ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছেন।

‘ইন্ডিয়ানা জোন্স এন্ড দ্য টেম্পল অব ডুম’ (১৯৮৪) ছবিতে মোলা রাম চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন অমরেশ পুরী। ‘অক্টোপুসি’ (১৯৮৩) ছবিতে অভিনয় করেছিলেন কবির বেদী। ‘সিটি অব জয়’ (১৯৯২) ছবিতে অভিনয় করেছিলেন ওম পুরী। ‘ইন দ্য লীগ অব এক্সট্রা অর্ডিনারী জেন্টলম্যান’ (২০০৩) ছবিতে অভিনয় করেছিলেন নাসিরুদ্দিন শাহ ক্যাপ্টেন নিমো চরিত্রে।

‘দ্য মাইটি হার্ট’ (২০০৭) ছবিতে অভিনয় করেছেন ইরফান খান। ভারত সেরা এই অভিনেতাদের পাশাপাশি সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বখ্যাত মার্শাল আর্ট হিরো জ্যাকি চ্যানের বিপরীতে ‘দ্য মিথ’ (২০০৬) ছবিতে অভিনয় করেন আবেদনময়ী মল্লিকা শেরওয়াত।

সাবেক বিশ্বসুন্দরী ঐশ্বরিয়া রাইয়ের একাধিক প্রজেক্টের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ‘দ্য পিঙ্ক প্যান্থার-টু’। হলিউডের ছবিতে বলিউডের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের অংশগ্রহণ বছর কয়েক আগেও বলিউডবাসীর কাছে স্রেফ ‘সম্মানজক’ বলে ঠেকলেও এখন সেই চিত্র পাল্টে গেছে।

হলিউডের নির্মাতাদের কাছে বলিউড এখন এক বিরাট ফ্যাক্টর। আর এর একমাত্র কারণ বলিউডি ছবির বিশ্বজোড়া মার্কেট। অক্ষয় কুমারের মতো প্রথম সারির একজন তারকা থাকার পরও ‘চাঁদনী চক টু চায়না’র বাজেট যেখানে দাঁড়ায় মাত্র ১২ মিলিয়ন ডলার (৬০ কোটি রুপি), সেখানে একটি হলিউডি ছবির গড়পরতা বাজেট ১০০ মিলিয়ন ডলার।

আর এই হিসাবটাই এখন বার বার কষছে হলিউডের স্বনামধন্য ও বিশ্ববিখ্যাত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো। বলিউডে ছবি নির্মাণের খরচ হলিউডের তুলনায় কিছুই নয়। অথচ এই স্বল্প খরচে ছবি বানিয়েই সুযোগ থাকছে পুরো বিশ্বের সিনেমা-মার্কেট ধরার সুযোগ।

আর তাই মৌমাছির ঝাঁকের মতো মৌচাকের সন্ধানে হলিউডের নাম্বার ওয়ান ব্যানারগুলো টাকার ঝাপি মেলে ধরেছে বলিউডে। ২০০৭ সালে সঞ্জয় লীলা বানসালির ‘সাওয়ারিয়া’কে বলা চলে হলিউডের প্রযোজকদের প্রথপ্রদর্শক। এ ছবিতে বিনিয়োগ করে সনি পিকচার্স।

এখনতো সনি’র পথ ধরে ওয়ার্নার ব্রাদার্স, প্যারামাউন্ট পিকচার্স টুয়েন্টিন্থ সেঞ্চুরি ফক্স এর মতো হলিউডি ব্যানারও বলিউডে বিনিয়োগ করতে শুরু করেছে। ওয়ার্নার ব্রাদার্স এবং পরিচালক নিখিল আদভানির মধ্যে একাধিক ছবি নির্মাণের চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে।

যার মধ্যে রয়েছে রিতেশ দেশমুখ, জ্যাকুলিন ফার্নান্ডেজ এবং রুসেলান মমতাজ অভিনীত মিলাপ জাবেরী পরিচালিত ‘জানে কাহাসে আয়ি’, অক্ষয় খান্না-বিদ্যা বালান অভিনীত নিখিল আদভানি পরিচালিত ‘চাঁদভাই’ এবং অক্ষয় খান্না অভিনীত নভদ্বীপ সিং পরিচালিত ‘বসরা’।

ওয়ার্নার ব্রাদার্স এখন পর্যন্ত দু’টি বলিউডি ছবি রিলিজ দিয়েছে। ছবি দু’টি হচ্ছে ‘চাঁদনী চক টু চায়না’ এবং ‘সাঁস বহু অর সেনসেক্স’। নিখিল আদভানি যখন ওয়ার্নার ব্রাদার্স-এর সঙ্গে চুক্তি করতে ব্যস্ত, তখন আদভানিরই একাধিক ছবির প্রযোজক বিপুল শাহ্ ফক্সস্টার স্টুডিওস ইন্ডিয়া-এর সঙ্গে একাধিক ছবি নির্মাণের উদ্যোগ নিচ্ছেন।

যার মধ্যে থাকছে স্পেশাল অ্যাফেক্টভিত্তিক ফ্যান্টাসি এবং একটি রোমান্টিক কমেডি। অন্যদিকে ভারতের অন্যতম ধনী অনিল আম্বানি’র রিলায়েন্স এডিএজি এবং স্টিভেন স্পিলবার্গের ড্রিম ওয়াক্স ১.২ বিলিয়ন ডলারের এক চুক্তি সম্পাদন করেছে বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

বলিউডের নির্মাতারা মনে করছেন এর ফলে এই ইন্ডাস্ট্রির কলা-কুশলীদের কাজের গন্ডি অনেক বেড়ে যাবে। হিন্দী চলচ্চিত্রের বিস্মৃতি ও সমৃদ্ধি ঘটবে। আর এর লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করেছে আরো আগেই। সাজিদ নাদিওয়ালা’র ‘কমবখত ইশক’ ছবিতে অক্ষয় কুমার এবং কারিনা কাপুরের সঙ্গে অভিনয় করেছেন সিলভেস্টার স্ট্যালেন এবং ডেনিস রিচার্ডস।

রাকেশ রোশনের ‘কাইটস’ ছবিতে ঋত্বিক রোশনের সঙ্গে অভিনয় করেছেন মেক্সিকান অভিনেত্রী বারবারা মোরি। নিখিল আদভানি’র ‘চাঁদনী চক টু চায়না’ ছবিতে অক্ষয় কুমারের সঙ্গে অভিনয় করেছেন ভেটেরন চাইনিজ অভিনেতা গর্ডন লিউ। হলিউড-বলিউডের এই সম্মেলন বলিউডি ছবির নতুন দিনের ইঙ্গিতবাহী।

আন্তর্জাতিক তারকাদের বলিউডের ছবিতে অভিনয় হিন্দী ছবিতে নতুন মাত্রা যোগ করবে। বিশ্বব্যাপী বলিউডের গ্রহণযোগ্যতা আরো বাড়িয়ে তুলবে এতে কোনো সন্দেহ নেই। অনেকেরই ধারণা এতোদিন ধীরে ধীরে বলিউডে বিশ্ববাজার সৃষ্টিতে যতটুকু এগিয়েছে তার চেয়ে বেশি বলিউডকে এগিয়ে দিয়েছে ড্যানি বয়েলের অস্কার-জয়ী ছবি ‘স্লামডগ মিলিওনেয়ার’।

অনিল কাপুর, ইরফান খান, দেব প্যাটেল, ফ্রিদা পিন্টোর অভিনয়ে সমৃদ্ধ ভারতীয় প্রেক্ষাপটে নির্মিত এ ছবিটি আটটি অস্কার জয় করেছে। যার মধ্যে আবার দু’টি সুরকার এ আর রহমানের। ‘স্লামডগ মিলিওনেয়ার’ বলিউডকে অন্য বলিউডের উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছে। বলিউডের এখন কেবল বিশ্বজয়ের অপেক্ষা।

বন্ডগার্ল হতে পারেন
ফ্রিদা পিন্টো

এর আগে তার কোনো অভিনয়ের অভিজ্ঞতা ছিল না। কিন্তু তার ডেব্যু মুভি স্লামডগ মিলিয়নেয়ারের কল্যাণে তিনি এখন রীতিমতো ইন্টারন্যাশনাল সেলিব্রেটি। এমনকি এখন কথা উঠেছে বন্ডগার্ল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তার। শুধু তাই নয়, বৃটিশ পত্রিকা দ্য সানের রিপোর্ট অনুযায়ী ফ্রিদাকে বন্ড সিরিজের পরবর্তী মুভির জন্য স্ক্রিন টেস্টেও ডাকা হয়েছে।

জানা গেছে, বন্ড সিরিজের লেটেস্ট মুভি কোয়ান্টাম অফ সোলেসের কাস্টিংয়ের সময়ই তিনি গণনার মধ্যে এসেছিলেন।
কিন্তু জেমস বন্ডের গার্লফ্রেন্ড হিসেবে তার বয়সটা কম হওয়ায় সে সময় তার কথা মাথা থেকে বাদ দিতে হয়েছিল মুভির প্রডিউসারদের। আরো জানা গেছে, নতুন মুভিটির প্রডিউসার বারবারা ব্রোকোলি তাকে মুভিতে রাখতে বেশ আগ্রহী।

এমনকি মুভির ডিরেক্টর হিসেবে ড্যানি বয়েল থাকতে পারেন, একথাও মিডিয়াতে প্রকাশিত হয়েছে। যদি সব ঠিক থাকে, তবে জেমস বন্ড হতে যাচ্ছে তার তৃতীয় ইন্টারন্যাশনাল প্রজেক্ট, কারণ এর আগে অস্কারজয়ী খ্যাতিমান ডিরেক্টর উডি অ্যালেন তার একটি মুভিতে নিয়ে ফেলেছেন এ ভাগ্যবতী অভিনেত্রীকে।
 

মেয়ে
তুমি তো নও চেনা

কদিন আগেও অনিল কাপুর তরুণী অভিনেত্রীদের বিপরীতে তুমুল রোমান্টিক দৃশ্যে অভিনয় করেছেন। তাই তো সোনম কাপুরকে দেখে মানুষের চোখ কপালে ওঠে। ‘অনিল কাপুরের মেয়ে সোনম! হায় হায়!! এটা কি করে সম্ভব’- মানুষের মনে এ ধরনের অবাক প্রশ্ন উদয় হওয়া অসম্ভব কিছু নয়।

কারণ সোনমের বয়সী অভিনেত্রীদের বিপরীতে অবলীলায় অভিনয় করেছেন তার বাবা অনিল কাপুর। সেই সোনম এখন নিজেই নায়িকা। মেয়ে সোনমকে দেখে যে অনেকে চোখ কপালে তুলবে, বিষয়টি ঠিকই বুঝেছিলেন অনিল। তাই তো মেয়ে নায়িকা হয়ে পর্দায় হাজির হওয়ার আগেই তিনি নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন-কমিয়ে দিয়েছেন অভিনয়।

দু’একটি ছবিতে অভিনয় করলেও নায়কের চরিত্রে নয়-অন্যান্য চরিত্রে। অবশ্য বাবা হিসেবে মেয়ের পথ মসৃণ করার চেষ্টা অনিল সবসময়ই করেছেন। সোনমের প্রথম ছবি সঞ্জয়লীলা বানশালীর ‘সাওয়ারিয়া’। বিপরীতে ছিলেন রণবীর কাপুর। প্রথম ছবি দিয়েই সোনম বুঝিয়ে দিয়েছিলেন অভিনয়শৈলীতে সর্বোচ্চ উচ্চতায় ওঠার প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে নেমেছেন তিনি।

সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে তার দ্বিতীয় ছবি। ‘দিল্লি-৬’ শিরোনামের এ ছবিতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন অভিষেক বচ্চন। এ ছবিটি দর্শক মহলে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। দিল্লিবাসী তরুণীর চরিত্র তিনি সার্থকভাবেই ফুটিয়ে তুলেছেন। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল, ‘দিল্লি-৬’ ছবি মুক্তির পর থেকে সোনমের নাম পাল্টে গেছে।

সবাই তাকে কবুতর বলে ডাকেন। কারণ ছবিতে মেয়েটি কবুতরপ্রেমী। তাছাড়া অভিষেক ছবিতে সোনমকে বেশ কয়েকবার কবুতর বলে ডেকেছেন। কবুতরের সঙ্গে আসলেই মিল রয়েছে মেয়েটির। তার দু’জোড়া পোষা কবুতরও আছে। শুধু তাই নয়, নিজের পোষা কবুতরের সঙ্গে সোনম ‘দিল্লি-৬’ ছবিতে অভিনয়ও করেছেন। ব্যক্তিজীবনেও সোনম কবুতরের মতো সরল।

দু’বোন এক ভাইয়ের মধ্যে তিনি বড়। বাবা-মা, ভাই-বোনদের সবসময় মাতিয়ে রাখেন ফুর্তিবাজ সোনম। সম্প্রতি তিনি ইউনিভার্সিটি অব মুম্বাই থেকে পলেটিক্যাল সায়েন্সে গ্রাজুয়েশন করেছেন। ইংরেজি, হিন্দি এবং পাঞ্জাবি ভাষায় তিনি বাকপটু। তালিম নিয়েছেন ক্লাসিক্যাল এবং লাতিন নৃত্যের ওপর।

১৯৮৫ সালের ৯ জুন সোনম মুম্বাইয়ে জন্মগ্রহণ করেন। এ মেয়েটি কিন্তু অভিনেত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখেননি। হতে চেয়েছিলেন একজন নির্মাতা। তাই তো সঞ্জয়লীলা বানশালীর সঙ্গে তিনি সহকারী হিসেবে কাজও শুরু করেছিলেন। কিন্তু বানশালী দেখলেন মেয়েটি অভিনয়ে ভালো করবে। তাই বানশালী নিজের ছবিতেই সোনমকে অভিনয় করালেন। সেই ছবিটিই ‘সাওয়ারিয়া’।

এখন সোনম অভিনেত্রী হিসেবেই নিজেকে দেখতে চান। সম্প্রতি তিনি নতুন একটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। ‘কাম অন পাপ্পু’ শিরোনামের ছবিটি পরিচালনা করবেন ডেভিড ধাওয়ান। সোনমের বিপরীতে আছেন অক্ষয় কুমার। বর্তমানে সোনম জেগে এবং ঘুমিয়ে একটি স্বপ্নই দেখছেন। আর তা হল শাহরুখের বিপরীতে অভিনয়।

এ প্রসঙ্গে সোনম বলেন, ‘আমি শাহরুখের দারুণ ভক্ত। তার বিপরীতে অভিনয় আমার স্বপ্ন।’ সোনমের স্বপ্ন সত্যি হোক। অবশ্য স্বপ্ন সত্যি না হওয়ার কিছু নেই। কারণ কবুতররা নাকি পবিত্র আর শান্তিপ্রিয়তার প্রতীক। তাই স্বপ্ন সত্যি হওয়াটাই স্বাভাবিক।

এবার দ্বৈত চরিত্রে
আসিন

 

সাউথ ইন্ডিয়ার সফল অভিনেত্রী আসিন তার বলিউড ডেবু গজনি দিয়ে বাজিমাত করেছেন। আর এবার তিনি হাজির হচ্ছেন দ্বৈত চরিত্রে। মুভির নাম দশাভাতারাম। মুভিতে তিনি কোথাই রাধা নামের ১২ শতাব্দীর ও আন্দাল নামে ২১ শতাব্দীর মেয়ের চরিত্রে হাজির হচ্ছেন। দুটি চরিত্রেই তিনি থাকেন একটি ব্রাহ্মণ মেয়ে।

শুধু তাই-ই নয়, এ মুভিতে লিড অ্যাক্টর কমল হাসান দশটি চরিত্রে হাজির হয়েছেন। মুভিতে মল্লিকা শেরাওয়াতও অভিনয় করছেন। প্রথমে চরিত্রটি বিদ্যা বালানকে অফার করা হলে তিনি সেই অফার ফিরিয়ে দেন। পরে আসিনকে নির্বাচন করা হয়।

উল্লেখ্য, মুভিটির তামিল সংস্করণ ২০০৮-এর জুনেই রিলিজ হয়েছে এবং এটি তামিল মুভি ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম একটি ব্লকবাস্টার হিট হিসেবে লিপিবদ্ধ হয়েছে। ২০০৫ সালে এ প্রজেক্টটির কাজ শুরু হলেও বিভিন্ন কারণে তিন বছর বন্ধ ছিল এর কাজ। মুভির মিউজিক পরিচালনা করেছেন হিমেশ রেশামিয়া।

.... আগে যা ছিল.

একজন হানিফ সংকেত
খুব চেনা চেনা যে মেয়েটি
বিয়ে করলেন রিচি সোলেয়মান
অস্কারে "স্লামডগ মিলনিয়ার" ঝড়
বিশ্বজুড়ে বলিউড
 

 Under this category : Travel and Living : Life Style : Making Money on the NET

...

Articles are submitted to Here are licensed from various content sites
To report abuse, copyright ? issues, article removals, please contact [
webmaster@khola-janala.com]

Contact Khola-Janala